মুসলিম বিয়ের কার্ডের ডিজাইন

আমরা মুসলিম বিয়ের কার্ডের ডিজাইন নিয়ে অনেক সময় চিন্তা করি। এবং এটি বিয়ের অনেক গুরুত্তপূর্ন একটি কাজ তাই খুব সাবধানে করতে হয়। তো, আজ আমরা দেখব অনেক গুলো মুসলিম বিয়ের কার্ডের ডিজাইন।

যেহেতু আমরা মুসলমানদের কালচারাল ফলো করবো, তো আমাদের এমন কিছু জিনিস মনে রাখতে হবে যাতে সব কিছুর পরেও কেউ দেখলে মনে করে যে এটা একটি মুসলিমের বিয়ের কার্ড।

এবং সাথে আপনাকে শরীয়তের দৃশটি কোণ থেকেও জায়েজ যেন থাকে। So, let’s go for Muslim weeding card design.

এখন ডিজাইনের পাশাপাশি আমরা কার্ডগুলোর দাম কেমন পড়বে এবং কোন ডিজাইনের কেমন দাম সেটা দেখব। এতে করে ধারণা হয়ে যাবে যে বিয়ের কার্ডের ডিজাইন এর দাম কেমন।

কিভাবে একটি মুসলিম বিয়ের কার্ডের ডিজাইন এ লিখবো?

সাধারণত যে সব কার্ড বাজারে পাওয়া যায় সেগুলো আগের ডিজাইন করা। কিন্তু আপনার যদি সামান্য ধারনা তাকলেই আপনার পছন্দের কার্ডটি বানিয়ে নিতে পারবেন। তো, সাধারণ বিয়ের কার্ডের ডিজাইনে আপনার খুব যে কম খরচ হবে তা নয়। তবে অনেক সময় সাধারণ বিয়ের কার্ডের ডিজাইনে কম খরচ হয়।

  1. সাধারণত মানুষ যেভাবে লিখে সেভাবেই আপনি লিখতে পারেন তবে এখানে মুখ্য বিষয় থাকবে যে কার্ডটি একটি মুসলিম আঙ্গিকে তৈরি হবে। এরকম একটি কার্ডের ডিজাইনের আপনি আরবি ক্যালিগ্রাফি যোগ করতে পারেন। তাছাড়া কোন ইসলামিক বক্তব্য বা হাদিস অথবা কোন বাক্য দিতে পারেন।
  2. কার্ডে আপনি পশু পাখি বা মানুষের ছবি যুক্ত করবেন না কারণ এগুলো ইসলামে হারাম। যেহেতু অনেক উলামায়ে কেরামের বক্তব্য এই যে বিয়েতে যে গিফট দেওয়া হয় সেটা ঠিক না তো এজন্য আপনি কার্ডে লিখে দিতে পারেন যে আপনাদের দোয়াই কাম্য কোন গিফট নয়। এটা অন্তত লিখে দিলে অনেকেই বুঝে নিবে যে এই বিয়েতে গিফট নেওয়া যাবে না।

মুসলিম বিয়ের কার্ডের ডিজাইন এর ধরণ

অনেক ধরনের থিম আছে যে গুলো খুবই স্পেশালি মুসলমানদের বিয়ের জন্য তৈরী। এখানে একটি কথা বলে রাখা দরকার যে, বিয়ের কার্ড শুধু মুসলমানরা যে বানায় এমন না প্রায় সব ধর্মাবলম্বিই বিয়ের কার্ড বানায়। এই কথা টি এই জন্য বলছি যে, আপনি যখন বিয়ের কার্ড পছন্দ করবেন তখন চেষ্টা করবেন যেনো সেটি কোনো হিন্দুআনী বা অন্য কোনো ধর্মের অনুসারীর কার্ড না হয়। তো চলুন কিছু এমন থিম দেখি যে গুলো শুধু মাত্র মুসলমানদের জন্য এবং আশা করি আপনাদের পছন্দ হতে পারে৷

আরবি ক্যালিওগ্রাফি যুক্ত বিয়ের কার্ড

Arabic Calligraphy (আরবি ক্যালিওগ্রাফি) যুক্ত কার্ড গুলোতে মূলত আরবি অক্ষরে কোনো লিখাকে ক্যালিওগ্রাফির আদলে তৈরী করা হয়। এটি দেখতে খুবই সুন্দর।

মুসলিম বিয়ের কার্ডের ডিজাইন

সাধারণ বিয়ের কার্ডের ডিজাইনের খরচ

সাধারণ বিয়ের কার্ডে লো বাজেটে করা যেতে পারে। প্রতি কার্ডে খুব খরচ হলে কার্ড প্রতি ৮-১০ টাকা খরচ হবে।

তাছাড়া সাধারণ কার্ড গুলোর দাম ১০-৩০ টাকা পর্যন্ত ও হতে পারে।

সাধারণত সাধারণ কার্ডগুলো থাকে এটার কার্ড গুলা এগুলোতে স্কেচ থাকেনা ডিজাইন থাকে না। এই গুলা ডিজাইন হয় প্লেইন ডিজাইন। মোটামুটি ধরনের ল বাজেটে বিয়ের কার্ডের ডিজাইনটা একটু লো কোয়ালিটির কাগজে করা হয় যাতে এর কম বাজেট হয়।

মিডিয়াম কোয়ালিটির বিয়ের কার্ডের ডিজাইন

মিডিয়াম কোয়ালিটির কার্ড গুলোই বেশি ব্যবহার করা হয়। এই সব কার্ডের কাস্টম ডিজাইন এড করা যায় না কিন্ত এই বাজেটে অনেক ভালো কার্ড পাওয়া যায়।

মিডিয়াম কোয়ালিটির কার্ডের দাম সাধারণত ৩০-৫০ টাকা হয়ে থাকে৷ তবে, জায়গা ভেদে এই সব কার্ডের দাম ৫০ টাকার বেশি ও প্রতি পিস হতে পারে।

ভালো কোয়ালিটির কার্ডের দাম

ভালো কোয়ালিটির কার্ডের দাম সাধারণত ৫০-১০০ টাকা হতে পারে।

ভালো কোয়ালিটির কার্ডে কাস্টম ডিজাইন এড করা যেতে পারে। সেটা কার্ড প্রভাইডারদের সাথে কথা বলে ফিক্স করে নিতে হবে।

প্রিমিয়াম কোয়ালিটির বিয়ের কার্ডের ডিজাইন

প্রিমিয়াম কোয়ালিটির কার্ডের ডিজাইন

একটি মানবিক আবেদন!

আমার মনে হয় প্রত্যেক মুসলমানই এই দিকটা ভাবার দরকার। আপনি একজন কে একটি কার্ড দিলেন। সে কার্ড টি নিলো। পড়লো। ব্যাস শেষ। এর পর কি এই কার্ডের আর কোনো ব্যবহার হয়? তাহলে কেন এতো অপচয়? আপনাকে না করছি না যে বিয়ের কার্ড না বানাতে৷ কিন্তু এতো দামি দামি কার্ডের দরকার কি? এটা তো একটা অপচয়! এই টাকা টা গরিবদের দান করলে কতটা সওয়াব পাবেন জানেন কি?

Leave a Comment